ম্যানেজার

ম্যানেজারকে বিদায়

– বুঝলি, আজ আমার ম্যানেজারটাকে বিদায় করে দিলাম। ব্যাটা আবার একটা সার্টিফিকেট চায়, শেষে দিলাম একটা। তবে লিখে দিয়েছি লোকটা অলস, মিথ্যাবাদী, চোর, ঝগড়াটে… – আহা দু-একটা ভাল কথাও লিখতি। – তাও লিখেছি….সে ভাল খেতে পারে, অফিসের টেবিলে ভাল ঘুমাতে পারে…

পোকাদের ফুটবল ম্যাচ

পোকাদের ফুটবল ম্যাচ শুরু হয়েছে। কিন্তু শুঁয়োপোকা এখনো মাঠে নামেনি। ছুটে গেল ওদের ম্যানেজার। – কী হল তোমার? এখনো মাঠে নামোনি, ওদিকে খেলা শুরু হয়ে গেল। – দেখছ না বুট পড়ছি, সবে তো মাত্র আট জোড়া পড়লাম।

বিয়ের আসরে

বিয়ের আসরে প্রচুর উপহার সামগ্রী পেয়েছে জন ও সোনিয়া। তার মধ্যে সবচেয়ে আকর্ষণীয় গিফ্ট হচ্ছে সোনিয়ার বাবার পক্ষ থেকে ৫০ হাজার ডলারের ব্যাঙ্ক চেক। একসময় জন সোনিয়াকে জিজ্ঞেস করল, – অনেক্ষণ থেকেই লক্ষ্য করছি একটা লোক আমার দিকে তাকিয়ে শুধু মিটিমিটি হাসছে। লোকটাকে চেন? – হ্যাঁ, উনি আমার বাবার ব্যাঙ্কের ম্যানেজার।

বেয়ারা হওয়ার প্রমাণ

ম্যানেজারঃ তুমি বলছ তুমি এ যাবৎ  দু তিনটা হোটেলে বেয়ারার কাজ করেছ। তা কোনো প্রমান ট্রমান আছে কি? বেয়ারাঃ স্যার, এই দেখুন, চারটা চামচ, তিনটা রূপার ডিশ, পাঁচটা অ্যাশট্রে আর একটা দামি তোয়ালে।

টসে তো জিতেছি

দশ উইকেটে হেরে দলটি ফিরে এল ক্লাবে। ক্লাব ম্যানেজার উৎসাহ জোগাতে চাইলেন খেলোয়াড়দের। – নো চিন্তা ডু ফুর্তি। হেরেছ তো কি হয়েছে? টসে তো জিতেছিলে।

ম্যানেজার সাহেব

জানিস, ম্যানেজার সাহেব আমাকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করেছেন। – কেন? – তিনদিন অফিসে যাই নাই তাই। – ম্যানেজার সাহেবকে বলে দিলেই পারতি যে তোর বাবা মারা গেছেন। – এ কথা উনি বিশ্বাস করতেন না। – কেন? কারো কি বাবা মারা যায় না? – মারা তো অবশ্যই যায়, কিন্তু ম্যানেজার সাহেবই যে আমার বাবা।

মশা আর ছারপোকা

হোটেল ম্যানেজারঃ স্যার, রাতে ভালো ঘুম হয়েছে তো? বোর্ডারঃ খুব, আপনার হোটেলের মশা এমন শক্তিশালী যে আমায় প্রায় উড়িয়ে নিয়ে যাচ্ছিল। ভাগ্যিস খাটে ছারপোকা ছিল। ওরা আমাকে টেনে ধরে না রাখলে সকালে আমাকে হয়তো অন্য কোথাও পেতেন।

গ্রামার নাকি গ্ল্যামার

বসঃ এ কী টাইপিস্ট নিয়েছেন? সুন্দরী তাতে সন্দেহ নেই- কিন্তু প্রতিটি লাইনে এক গণ্ডা ভুল। আপনাকে বলি নি, টাইপিস্ট নেওয়ার সময় গ্রামারের দিকে নজর রাখবেন। ম্যানেজারঃ শুনতে ভুল হয়েছিল স্যার, আমি গ্ল্যামারের দিকে নজর রেখেছিলাম।

ছাতাটাও আপনার!

হোটেল থেকে নাশতা সেরে এক লোক বেরিয়ে যাচ্ছে। আরেক লোক তখন ম্যানেজারকে বিশ টাকার নোট দিয়ে বিল মিটাচ্ছিল। নোটটার কোনায় একটা লাল দাগ আছে এটা প্রথম লোকটি লক্ষ করল। তারপর মৌরি চিবাতে চিবাতে সে বেরিয়ে যাবার উপক্রম করল। ম্যানেজার ডেকে বলল, এই যে ভাই, বিল দিয়ে যান। – বিল তো দিয়েছি। দেখেন ড্রয়ারে লাল দাগওয়ালা …

ছাতাটাও আপনার! Read More »

চাবি হারানো

ম্যানেজারঃ তুমি নাকি আলমিরার চাবি আবারও হারিয়েছ? কেরানিঃ জ্বী স্যার। ম্যানেজারঃ আগে একটা হারিয়েছিলে তাই এবার তালার সঙ্গে দুটো চাবিই তোমাকে দিয়েছিলাম। কেরানিঃ দুটোই হারাই নি স্যার, একটা মাত্র হারিয়েছি। ম্যানেজারঃ তাহলে বাকি চাবি টা কোথায়? কেরানিঃ হারিয়ে যাওয়ার ভয়ে আগে থেকেই সাবধান ছিলাম। তাই ওটা আলমিরার মধ্যেই সংরক্ষণ করে রেখেছিলাম।